৬টি ভুল যা আইফোন ব্যবহারকারীরা করে থাকেন

Written by: Madhuraka Dasgupta

এখন স্মার্টফোনের যুগ। স্মার্ট দুনিয়ার স্মার্ট চয়েস হল স্মার্টফোন৷ কিন্তু, স্মার্ট ফোনের স্মার্ট ব্যবহার কতজনই বা জানেন? কতজনই বা বোঝেন কোনটা ঠিক আর কোনটা ভুল? প্রত্যেকেই কম বেশি কিছু না কিছু ভুল করে বসেন৷ স্মার্টফোনের জগতে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে অ্যাপেলের ফোন। কিন্তু আপনি কি আপনার অ্যাপেলের স্মার্টফোনটি ঠিকমতো ব্যবহার করছেন? আপনার কোনও ভুলের জন্য ফোনের কোনও ক্ষতি হচ্ছে না তো?

৬টি ভুল যা আইফোন ব্যবহারকারীরা করে থাকেন

কয়েকবছর আগে যখন প্রথম বাজারে স্মার্টফোন আসে, তখন তা খুবই ইউজার-ফ্রেন্ডলি ছিল। অর্থাত তা খুব সহজেই ব্যবহার করা যেত। কিন্তু যতদিন যেতে থাকে, ফোনের টেকনোলজি আরও উন্নত হতে থাকে এবং ক্রমাগত হার্ডওয়্যার-সফটওয়্যার আপডেট হওয়ার জন্য বর্তমানে আইফোন ব্যবহার করা একটু কঠিন হয়ে পড়েছে।

এই ৫টি ওয়েবসাইটে অনলাইনে সিনেমা দেখুন, বিনামূল্যে...

আপনি যদি অ্যাপেলের স্মার্টফোনের ইউজার হন, তাহলে আপনি ভালোভাবেই জানেন যে, এখন অ্যাপেলের আইফোন ব্যবহার করা আগের থেকে একটু কঠিন হয়ে পড়েছে। সেক্ষেত্রে আইফোন ইউজার্সরা এই ফোনটি ব্যবহার করতে গিয়ে বারবার নানারকম ভুল করে থাকেন। তার প্রথম এবং প্রধান কারণ হল, এই ডিভাইসটি
সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে ধারণা খুবই কম।

কিভাবে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের বিরক্তিকর অ্যাডগুলিকে বন্ধ করবেন

এই অ্যাপেলের ফোনগুলিতে এতরকমের নতুন নতুন টেকনোলজি থাকে যে, সেগুলো কিভাবে ব্যবহার করতে হয়, সেই সম্পর্কেই কোনও পরিস্কার ধারণা আমাদের থাকেনা। তাই বারবার ভুলও হয়।

তবে সমস্ত ভুলভ্রান্তি এবার শেষ হতে চলেছে। কারণ অ্যাপেলের আইফোন ব্যবহার করতে গিয়ে প্রধানত যে ৬টি ভুল আমরা করে থাকি সেই ভুলগুলো আর তার সংশোধনের উপায় আজ আপনাদের জানাব।

অন্য কোম্পানির চার্জার ব্যবহার

কোনও কারণে অ্যাপেলের আইফোনের চার্জার খারাপ হয়ে গেলে বা হারিয়ে গেলে, আমরা নতুন চার্জার কেনার চিন্তাভাবনা করি। সেক্ষেত্রে আমরা বেশিরভাগ সময়ই কোনও অনলাইন সাইটে গিয়ে ডজনখানেক বেনামী কোম্পানির চার্জার, যেগুলোর দাম খুবই সস্তা, সেই চার্জার কিনে ফেলি। অথবা দোকানে যদি অ্যাপেলের ফোনের চার্জার কিনতে যাই, সেক্ষেত্রেও আমরা কোনও সস্তার চার্জারই কিনে নিই। অ্যাপেলের অরিজিনাল চার্জারের দাম বেশখানিকটা বেশি হওয়ায়, সেই চার্জার আমরা সচরাচর কিনিনা।

 

সুতরাং, যদি আপনারা ভেবে থাকেন যে, অ্যাপেলের অরিজিনাল দামী চার্জার না কিনে অন্য কোম্পানির চার্জার কিনে পয়সা বাঁচাবেন, তাহলে জানিয়ে রাখি, আপনি একেবারেই ভুল ভাবছেন। এখনই এরকম কোনও চিন্তাভাবনা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দিন। অ্যাপেলের অরিজিনাল চার্জার কিনলে আপনার হয়তো বেশি খরচ হবে, কিন্তু কমদামী চার্জার আপনার ফোনের নানাভাবে ক্ষতি করবে।

ব্যাকআপ ডেটা না রাখা

অনেকেই তাঁদের ফোনের ডেটার ব্যাকআপ রাখেন না বা বলা ভালো তাঁদের ডেটা ব্যাকআপ রাখার অভ্যাস নেই। এরফলে ফোনে কোনওধরণের কোনও সমস্যা হলে ফোন থেকে সমস্ত ডেটা ডিলিট হয়ে যায়। তাছাড়া, ফোন চুরি হয়ে গেলে বা হারিয়ে গেলেও ফোনের ডেটা আর ফেরত পাওয়া সম্ভব হয়না। ফলে ডেটা ব্যাকআপ রাখা অত্যন্ত জরুরী।

আচ্ছা, যদি আপনি একটি নতুন ফোন কেনেন এবং সেই নতুন ফোনে আপনার আগের ফোনের সমস্ত ডেটা পাওয়া যায়, তাহলে কেমন হয়? কথাটা ভেবেই কী ভালো লাগছে না! এই বিষয়টি বাস্তবায়িত হবে তখনই, যখন আপনি নিয়মিত আপনার ফোনের ডেটার ব্যাকআপ রাখবেন। সেক্ষেত্রে যদি আপনার ফোন চুরি হয়ে যায় বা হারিয়ে যায় তাহলেও আপনার সমস্ত ডেটা সেভড থাকবে।

ফোনের সেটিংসে গিয়ে iCloud-এ গিয়ে আপনি ব্যাকআপ করতে পারেন। অ্যাপেলের ফোনে 5 GB ফ্রি স্টোরেজ পাওয়া যায়। এছাড়াও iTunes-র মাধ্যমে ফোন থেকে কম্পিউটারেও আপনার ডেটা ব্যাকআপ করে রাখতে পারেন।

নোটিফিকেশনস

আপনি হয়তো খেয়াল করে থাকবেন, যখন ফোনে আপনি কোনও নতুন অ্যাপ ইনস্টল করেন, তখন সেই অ্যাপটি আপনার কাছে জানতে চায় যে, এই অ্যাপটির জন্য আপনি নোটিফিকেশনস অন রাখতে চান কীনা। বেশিরভাগ সময়ই আপনার উত্তর হয় "হ্যাঁ"। কিন্তু আমাদের মতে, আপনার নোটিফিকেশনসগুলো বন্ধ করে রাখা উচিত।

এর প্রধান কারণ হল, এই ধরণের নোটিফিকেশনের জন্য আপনার মনসংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। মেসেজ বা এই ধরণের কোনও অ্যাপের ক্ষেত্রে নোটিফিকেশন অন করে রাখা যেতে পারে। কিন্তু গেমস, ওয়েদার-রিপোর্ট জাতীয় অ্যাপের ক্ষেত্রে নোটিফিকেশন বন্ধ রাখাই ভালো।

ফোনে পাসকোড বা টাচ আইডি

অনেকেই ফোনে পাসকোড বা টাচ আইডি দেননা। কারণ বারবার ফোন আনলক করার সময় পাসকোড বা টাচ আইডি দেওয়া তাঁরা পছন্দ করেন না। কিন্তু মনে রাখবেন, যদি কোনও কারণে আপনার ফোন হারিয়ে যায় বা চুরি হয়ে যায়, তাহলে আপনার ফোনের সমস্ত তথ্য, ছবি অন্যের হাতে চলে যাবে, যা একেবারেই সেফ নয়। তাই ফোনে সবসময় পাসকোড বা টাচ আইডি দেওয়া উচিত।

অ্যাপ এবং ব্যাটারি সম্পর্কে প্রচলিত ধারণা

অনেকেরই ধারণা থাকে যে, ফোনের হোম বাটনকে দুবার ট্যাপ করলে এবং ফোনের সমস্ত অ্যাপ ম্যানুয়ালি বন্ধ করলে ফোনের ব্যাটারি লাইফ বাড়ে। আপনাদের জানিয়ে রাখি, স্মার্টফোনের ব্যাটারি সম্পর্কে এরকমের ধারণা একেবারেই ভ্রান্ত।

ফোনের অ্যাপগুলো ম্যানুয়ালি বন্ধ করলে ফোনের ব্যাটারির ওপর চাপ পড়ে। কীভাবে? যদি, আপনি ম্যানুয়ালি ফোনের অ্যাপ বন্ধ করে দেন, তাহলে যতবার আপনি সেই অ্যাপটি খুলবেন, ততবার নতুন করে সেই অ্যাপটি ওপেন হবে। এতে ফোনের ব্যাটারি বেশি খরচ হয়। সুতরাং ফোনের অ্যাপগুলো ম্যানুয়ালি বন্ধ করার দিন শেষ। বরং ওই কাজটা আপনার ফোনের ওপরই ছেড়ে দিন।

ফোন থেকে জীবাণুর সংক্রমণ

এটা পরীক্ষিত যে, স্মার্টফোনে মারাত্মকভাবে জীবাণু এবং ব্যাকটেরিয়া থাকে। একটি ফোনে যে পরিমাণ জীবাণু থাকে, বাথরুমেও সেই পরিমাণ জীবাণু থাকেনা।

তাই প্রতিদিন আইফোনের স্ক্রিন এবং বাটন ভালো করে টিস্যু দিয়ে পরিস্কার করা উচিত। নাহলে ফোন থেকেই জীবাণুর সংক্রমণ হতে পারে।

স্মার্টফোন নিয়ে যে ধরণের ভুলগুলো আমরা সচরাচর করে থাকি, সেগুলো এবং তার সংশোধন কীভাবে করা যায়, তা আপনাদের জানিয়ে দিলাম। আপনি এই নিয়মগুলো মেনে চললে আপনার স্মার্টফোন তো ভালো থাকবেই, আপনার শরীরও সুস্থ থাকবে।



English summary
6 mistakes you're making every day on your Apple iPhone.
Please Wait while comments are loading...

Social Counting