সোনারপুরে এক কিশোরীর প্রাণ কেড়ে নিল সোশাল মিডিয়া

    ফুটফুটে এক তরুনীর প্রাণ কেড়ে নিল সোশাল মিডিয়া। সোমবার দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলায় এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ জানিয়েছে বন্ধুর সাথে সোশাল মিডিয়ায় বচসার কারনেই আত্মহত্যা করেছে এই তরুনী।

    সোনারপুরে এক কিশোরীর প্রাণ কেড়ে নিল সোশাল মিডিয়া

    “সোমবার সকালে সোনারপুরে বাড়ির ছাদে ঝুলছিল দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্রী মৌসুমি মিস্ত্রির মৃতদেহ। ময়না তদন্তের জন্য মৃতদেহ পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।” সোনারপুর পুলিশ স্টেশান থেকে জানানো হয়েছে।

    মৌসুমির পরিবারের দাবি বন্ধুর সাথে সোশাল মিডিয়ায় মনমালিন্যের কারনে নিজেকে শেষ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছিলেন দ্বাদশ শ্রেনীর এই তরুনী।

    “রবিবার সন্ধ্যাবেলা বাড়ি ফেরার পর থেকেই খুব হতাশ দেখাছহিল ওকে। রাত দেড়টা পর্যন্ত ঘরের আলো জানিয়েছিল মৌসুমি। আমরা জানিনা ও কখন আত্মহত্যা করেছে।” বলে জানিয়েছেন মৌসুমির এক আত্মীয়।

    “আগেরদিন রাতে বন্ধুর সাথে চ্যাটে ঝগড়া হয়েছিল মৌসুমির। এমনকি অত্মহত্যার হুমকিও দিয়েছিল সে। ছেলেটি হয়তো বুঝতে পারেনি মৌসুমি এই রকম কিছু একটা করে বসবে।” বলেন তিনি।

    এবার আধার আপডেটের ইতিহাস জানা যাবে UIDAI ওয়েবসাইটে

    পুলিশ আরও বলে, “আমরা মৌসুমির ফোন থেকে স্ন্যাপশট উদ্ধার করেছি। অদন্তের পরে সত্যি জানা যাবে।”

    তবে এই ঘটনা আবার প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে তরুন প্রজম্নের উপরে সোশাল মিডিয়ার প্রভাবকে। আজকাল তরুন প্রজন্মের ছেলে মেয়েদের জীবনের সব হয়ে উঠেছে সোশাল মিডিয়ায় তাদের অ্যাপিয়ারেন্স। আর তাই নিজের পাশের জীবনকে ক্রমশ বুলতে বসেছে তারা। এমনকি বড়দের মধ্যেও এই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

    বিশ্বব্যাপী এই সমস্যা গ্রাস করেছে। এই মুহুর্তে বিশ্বব্যাপী মনোবিদদের গবেষনা অন্যতম প্রধান বিষন মানুষের মনে ও জীবনে সোশাল মিডিয়ার প্রভাব। গবেষণা চলুক তার মতো, কিন্তু সবার আগে বন্ধ হওয়া দরকার এই ধরনের ফুটফুটে প্রানগুলিকে রক্ষা করা।

    Source

    Read more about:
    English summary
    According to the family members, the girl committed suicide after she had a fight with her boyfriend over chat and threatened that she would kill herself.

    Bengali Gizbot আপনাকে নটিফিকেশন পাঠাতে চায়

    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Gizbot sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Gizbot website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more