ইন্টারনেট এত বিপজ্জনক হতে পারে জানলে হাড় হিম হয়ে যাবে

    সম্প্রতি মাদক পাচারের অভিযোগে দিল্লি থেকে দুই ছাত্রকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে 'ডার্কনেট’ ব্যবহার করে বার্লিন ও ক্যালিফোর্নিয়া থেকে মাদক কিনেছুল এই দুই তরুন। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব এর সবথেকে বিপজ্জনক জায়গা এই 'ডার্কনেট’। এখানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর পরিচয় জানা খুব শক্ত। তাই সহজেই জঙ্গী কার্য কলাপ ও মাদক পাচারীরা 'ডার্কনেট’ ব্যবহার করে কার্যসিদ্ধি করে। শুধুমাত্র Tor অনিওন ব্রাউজার ব্যবহার করেই 'ডার্কনেট’ ব্যবহার করা যায়। 'ডার্কনেট’ সপর্কে দশটি অজানা তথ্য জেনে নিন।

    ইন্টারনেট এত বিপজ্জনক হতে পারে জানলে হাড় হিম হয়ে যাবে

     

    ১। গুগল ইন্টারনেটের মাত্র ৪% দেখাতে পারে

    সারফেস ওয়েব শুধুমাত্র গুগল সার্চে দেখা যায়। যা মোট ইন্টারনেটের মাত্র ৪ শতাংশ। বাকি ৯৬ শতাংশ ইন্টারনেট কখনই ইন্টারনেটে দেখা যায় না।

    ২। মাদক ও অস্ত্র পাচারের জন্য জঙ্গী ও দুষ্কৃতিরা আলাদা সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে।

    'ডার্কনেট’ ব্যবহার করে জঙ্গীরা বেআইনি অস্ত্র পাচার ও মাদক পাপাচারের কাজ করে। 'ডার্কনেট’ এ রয়েছে আলাদা গোপন চ্যাটরুম। কোন ভাবেই এই চ্যাটরুমের হদিশ পাওয়া সম্ভব না।

    ৩। 'ডার্কনেট’ ব্যবহার বেআইনি না হলেও খুবই বিপজ্জনক

    'ডার্কনেট’ ব্যবহার কোন ভাবেই বেআইনি নয়। তবে এখানে জঙ্গি ও হ্যাকাররা খুব বেশি পরিমানে উপস্থিত থাকে। তাই 'ডার্কনেট’ ব্যবহার নিজের সুরক্ষার জন্য খুবই বিপজ্জনক।

    ৪। 'ডার্কনেট’ গুগল করা যায় না

    'ডার্কনেট’ এ গুগল কাজ করে না। কোন ভাবেই গুগল থেকে 'ডার্কনেট’ এর কোন ওয়েবসাইট খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়।

    ৫। 'ডার্কনেট’ এ রয়েছে একাধিক সোশ্যাল মিডিয়া

    'ডার্কনেট’ এর অন্যতম জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়ার নাম 'এলো’। 'ডার্কনেট’ এ ব্যবহারের জন্য ফেসবুকের আলাদা ভার্সান রয়েছে। তবে 'ডার্কনেট’ থেকে ফেসবুক ব্যবহার না করাই বুদ্ধিমানের কাজ।

    ৬। 'ডার্কনেট’ এ হিস্ট্রি সেভ হয় না

    'ডার্কনেট’ এ কোন ভাবেই ব্রাউজিন হিস্ট্রি সেভ হয় না। এছাড়াও 'ডার্কনেট’ ব্রাউজিং ট্র্যাক করা প্রায় আসম্ভবব।

    ৭। 'ডার্কনেট’ এ ব্যক্তিগত তথ্য দেওয়া হয় না

    ব্যক্তিগত তথ্য গোপন রাখাই 'ডার্কনেট’ ব্যবহারের প্রধান উদ্দেশ্য। তাই 'ডার্কনেট’ এ কেউ নিজের পরিচয় জানায় না।

    ৮। সারা বিশ্বের একাধিক সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থা 'ডার্কনেট’ ব্যবহার করে

    বিশ্বব্যাপী গোয়েন্দা সংস্থা ও সরকারের গোপন কাজের জন্য 'ডার্কনেট’ ব্যবহার হয়।

     

    ৯। 'ডার্কনেট’ থেকে শপিং

    'ডার্কনেট’ থেকে চুরি যাওয়া মোবাইল, কম্পিউটার, মাদক ও অস্ত্র কেনা যায়। তবে এই সব জিনিস থেকে দূরে থাকাই বাঞ্ছনীয়।

    ১০। 'ডার্কনেট’ এ পেমেন্ট

    'ডার্কনেট’ এ কেউ নিজের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে পেমেন্ট করে না। প্রধানত বিটকয়েনের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যবহার করে 'ডার্কনেট’ এ লেনদেন হয়।

    তবে 'ডার্কনেট’ ব্যবহারের আগে সব ধরনের সাবধানতা নেওয়া প্রয়োজন। যে কোন মুহুর্তে ডার্কনেট ব্যবহারের সময় আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খালি হয়ে যেতে পারে। অথবা আপনার কাছে আসতে পারে জঙ্গিদের হুমকি। কোন ভাবেই 'ডার্কনেট’ এ নিজের পরিচয় জানাবেন না।

    Read more about:
    English summary
    The Darknet is one of the most dangerous corners of the world wide web.

    Bengali Gizbot আপনাকে নটিফিকেশন পাঠাতে চায়

    Notification Settings X
    Time Settings
    Done
    Clear Notification X
    Do you want to clear all the notifications from your inbox?
    Yes No
    Settings X
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Gizbot sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Gizbot website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more